Breaking News

৫, টাকায় রোগী দেখেন এম‌বি,বিএস ডাক্তার, প্রতিদিন সেবা নেন শত শত মানুষ।

৫, টাকায় রোগী দেখেন এম‌বি,বিএস ডাক্তার, প্রতিদিন সেবা নেন শত শত মানুষ।

প্রতিদিন শত রোগী দেখেন গরীবের এমবিবিএস ডাক্তার শংকর গৌড়া। আর তার ভিজিট কত জানেন? মাত্র পাঁচ টাকা। ডাক্তার শংকর গৌড়ার মতো বিশাল হৃদয় মানুষেরাই পারে এই সব কাজ করতে।

ভারতের কর্ণাটক রাজ্যের মন্ডায়া গেলেই দেখা যায়, দেওয়ালে হেলান দিয়ে বসে আছে এক ভদ্রলোক। পরনে তার অতি সামান্য পোশাক, খালি পা, হাতে কম দামে ঘড়ি

আর অতি মনোযোগের সঙ্গে একটি তিন টাকা দামের কলম দিয়ে কি যেন লিখেই চলেছেন তিনি। আর অতি সামান্য পোশাকের এই ভদ্রলোকটি হচ্ছেন কর্ণাটক রাজ্যের মন্ডায়া শহরের কৃতি সন্তান ডাক্তার শংকর গৌড়া।

যিনি এমবিবিএস ও এমডি পাস করেছেন কলকাতা মেডিকেল কলেজ থেকে। অথচ এই মানুষটারই কিনা নেই নিজস্ব কোনো চেম্বার। কারণ কী? কারণ হলো একটি অত্যাধুনিক চেম্বার বানাতে প্রয়োজন কয়েক লাখ টাকা। এতো টাকা তিনি পাবেন কোথায়? অন্যদিকে নিজের পৈত্রিক ভিটায়

যে দুই কামরার ঘরটি রয়েছে সেটাও শহর থেকে অনেক দূরে। তাহলে রোগীরা আসবে কীভাবে? আর তারা যাতায়াত খরচই বা পাবে কোথায়? আর এই সমস্যার সমাধানে ডাক্তার শংকর গৌড়া প্রতিদিন সকাল ৮ টায় নিজেই পৌঁছে যান শহরে। এসে বসেন একটা ফাস্টফুডের দোকানের রকে।

সেখানে বসেই অনবরত রোগী দেখেন তিনি। যতক্ষণ না রোগীর লাইন শেষ হয়, ! আর এই রোগী দেখার বিনময়ে ডাক্তার বাবু সবার কাছ থেকে নেন মাত্র পাঁচ টাকা করে। যা দিয়ে কোনোক্রমে চলে তার সংসার খরচ। ডাক্তার না হয় দেখানো হলো, কিন্তু শুধু ডাক্তার দেখালেই তো রোগ

সারে না! রোগীরা কম দামে ওষুধ পাবে কোথায়? হ্যাঁ, এই সমস্যার সমাধানও আছে ডাক্তার শংকর গৌড়ার কাছে। তিনি রোগীদেরকে ওষুধ লিখে দেন বাজারে যেটি সবচেয়ে সস্তা ও সহজলভ্য সেটি।

নিশ্চয়ই ভাবছেন সেই ওষুধে কাজ হয় কিনা? এজন্য বোধহয় কিছু, বলার প্রয়োজন, নেই। ওষুধে কাজ হয় কিনা সেটা প্রতিদিন ডাক্তার বাবুর কাছে আসা রোগীর লাইন দেখেই আন্দাজ করা যায়। আজকাল আমাদের আশেপাশে অনেক ডাক্তারকেই চিকিৎসার নামে গরিবের

পকেট লুট করতে দেখা যায়। ওষুধ কোম্পানির পার্সেন্টেজ খেয়ে দামি দামি ওষুধ লিখে দেওয়ার মতো নিন্দনীয় কাজও করতে দেখা যায়।

এসব কারণে বর্তমানে ডাক্তার আর রোগীদের মাঝে বিরাজ করে দা কুমড়া সম্পর্ক! এক পক্ষ যেন আরেক পক্ষের নামই শুনতে পারি না। এমনকি কোনো কোনো ডাক্তারের, ব্যবহারে অতিষ্ঠ হয়ে, কেউ কেউ তো ডাক্তা,রদের ডাকাত বা কষাই বলেও সম্বোধন করে থাকে,। এতো সব নেতিবাচক ব্যাপারের মধ্যেও ডাক্তার শংকর গৌড়ার মতো মানুষদের এই মহৎ কাজগুলো সত্যিই আমাদেরকে, কিছুটা হলেও আশার আলো দেখায়। বিশ্বাস করতে বাধ্য করায় পৃথিবীতে মানবতা এখনো বেঁচে আছে।————/————-

About jacob done

Check Also

এহসান” গুরুপ নিয়ে খ্যাত, কুয়াকাটা হুজুরের মন্তব্য!

এহসান” গুরুপ নিয়ে খ্যাত, কুয়াকাটা হুজুরের মন্তব্য! ”হেলিকপ্টার হুজুর” খ্যাত কুয়াকাটার মাওলানা মো. হাফিজুর রহমান’ …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *