Breaking News

যে ভারতীয় মেয়েটিকে জিন্স পরার কারণে মেরে ফেলা হলো তার অপরাধ কী দুই মিনিট পড়ুন

তরুণী ও নারীরা আত্মীয়স্বজনের হাতে নৃশংস নির্যাতনের শিকার হচ্ছে – ভারতীয় সংবাদমাধ্যমে সম্প্রতি এমন খবরাখবর প্রায়ই শিরোনাম হচ্ছে। মেয়েরা নিজ ঘরের ভেতরেই যে কতটা অনিরাপদ সেদিকটাও সামনে নিয়ে আসছে এসব ঘটনা।

গত সপ্তাহে উত্তরাঞ্চলীয় রাজ্য উত্তর প্রদেশে সতেরো বছর বয়সী এক কিশোরী নেহা পাসওয়ানকে তার ঘনিষ্ঠ আত্মীয়স্বজনেরা পিটিয়ে মেরে ফেলেছে বলে অভিযোগ। কারণ তার জিন্স পরা পছন্দ করতে পারেনি তারা।

নিহত নেহার মা শকুন্তলা দেবী পাসওয়ান বিবিসি হিন্দিকে বলেন, পোশাকআশাক নিয়ে তর্কের এক পর্যায়ে নেহার দাদা এবং চাচারা তাকে লাঠি দিয়ে প্রচণ্ড পেটায়।

ঘটনাটি ঘটেছে ওই রাজ্যের সবচাইতে পিছিয়ে পড়া দেওরিয়া এলাকার একটি গ্রাম সাভরেজি খার্গে।

“সে দিনভর উপবাস পালন করছিল। সন্ধেবেলায় ধর্মীয় আচার পালনের জন্য জিন্স ও টপ পরিধান করে। যখন তার দাদা-দাদী এটা নিয়ে আপত্তি জানান, তখন নেহা এই বলে জবাব দেয় যে, জিন্স তৈরিই করা হয়েছে পরার জন্য আর সেজন্য আমি এটা পরেছি”, বলছিলেন নেহার মা।

ঝগড়ার মাত্রা ক্রমেই বাড়ছিল, যা এক পর্যায়ে সহিংসতায় রূপ নেয়, দাবী করেন মিসেস পাসওয়ান।

শকুন্তলা দেবী বলেন, তার মেয়ে অচেতন হয়ে পড়ে ছিল। তার শ্বশুরবাড়ির লোকেরা অটোরিকশা ডেকে আনে এবং জানায় তাকে হাস

পাতালে নিয়ে যাচ্ছে।

“তারা আমাকে সঙ্গে যেতে দেয়নি। তাই আমি আমার আত্মীয়স্বজনকে জানাই যাতে তারা সদর হাসপাতালে গিয়ে আমার মেয়ের খোঁজ নেয়। কিন্তু তারা সেখানে গিয়ে তাকে খুঁজে পায়নি”।

শকুন্তলা দেবী বলেন, পরদিন সকালে তিনি শুনতে পান গন্ডক নদীর ওপরের একটি সেতু থেকে একটি মেয়ের মৃতদেহ ঝুলছে। সেখানে গিয়ে তারা জানাতে পারেন, লাশটি তার মেয়ে নেহার।

পুলিশ এ ঘটনায় দশ জনের বিরুদ্ধে হত্যা ও প্রমাণ নষ্টের অভিযোগে মামলা করেছে। অভিযুক্তদের মধ্যে নেহার দাদা-দাদী, চাচা-চাচী, চাচাতো ভাইবোন ও অটোরিকশা চালক রয়েছে।

অভিযুক্তরা এখন পর্যন্ত কোন প্রকাশ্য বক্তব্য দেননি।

About jacob done

Check Also

সবচেয়ে বেশি ভিউয়ের রেকর্ড গড়লো স্পাইডার/ম্যান; নো ওয়ে হোম,এর ট্রেলার- দেখুন ভিডিও

সবচেয়ে বেশি ভিউয়ের রেকর্ড গড়লো স্পাইডার/ম্যান; নো ওয়ে হোম,এর ট্রেলার সনি পি;,কচার্সের ‘স্পাইডারম্যান: নো ওয়ে …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *