বাস্তবের টারজানের দেখা মিলল ভিয়েতনামের গ;ভীর জঙ্গলে

বাস্তবের টারজানের দেখা মিলল ভিয়েতনামের গ;ভীর জঙ্গলে
টারজান! হ্যাঁ বাস্তবে দেখা মিললো এই টারজানের। ভিয়েতনামের গভীর অরণ্যে দেখা মিললো ভ্যাং ল্যাংয়ের। ১৯৭২ সাল এক ভয়ংকর বোমার আঘাতে দুই ভাই-বোন ও মায়ের মৃত্যু হয়।

কোনো রকমে প্রাণে বেঁচে থাকেন ভ্যাং, তার বাবা ও দাদা। সেই সময়েই ভ্যাং -এর বাবা দুই ছেলেকে নিয়ে ;প্রাণে বাঁচতে পালিয়ে আসেন গভীর অরণ্যে। এ যেন সেই সিনেমার টারজান যে কিনা জানতোই না বাইরের জগৎ সমন্ধে, আমাদের বাস্তবের টারজানের সাথেই মিলে যায় হুবহু এই ঘটনা

যখন ভ্যাং -এর বাবা তাকে গভীর অরণ্যে; নিয়ে আসে তখন ভ্যাং ল্যাং একদমই শিশু। ৪১ বছর গভীর জ’ঙ্গলেই কাটিয়ে দেন ভ্যাং ল্যাং। বন্ধু বলতে চেনেন শুধু বনের; পশুদের, ধারণা নেই কোনো মহিলা সমন্ধে, ধারণা হয়নি যৌ’নতা সম্বন্ধে। পোশাক বলতে পরনে শুধু গাছের ছাল।

২০১৫ সালে হঠাৎ-ই দেখা মেলে এক ফটোগ্রাফার সেরেজের সাথে ভ্যাং -এর, তার হাত ধরেই বাইরের জগতের সাথে পরিচিত হোন ভ্যাং। ওই ফটোগ্রাফার সেরেজই তাদের তিনজনকে; বাইরের জগতের কাছে তুলে ধরেন।

এই মনুষ্য-জগত পেয়ে খুশি ভ্যাং ল্যাং। কিছুটা ধারণা তার এসেছে মহিলা সম্পর্কে, তবে যৌ’নতা নিয়ে; ধারণা আজও ভ্যাং -এর আসেনি, পুরুষ-নারী পার্থক্য কি; আজও তার কাছে অজানা। বাইরের জগতে পশুরা যেভাবে; মানুষের পোষ মানে সেই দেখে আপ্লুত ভ্যাং। ফটোগ্রাফার সেরেজ জানিয়েছেন – তার জীবনে সবথেকে পরিচিত মানুষের মধ্যে ভ্যাং হচ্ছেন সবথেকে ভালো মানুষ

About jacob done

Check Also

১- ক্লাসের মাত্র” একজন ছাত্রী’ বাকি ‘মেয়েদের বিয়ে!

১- ক্লাসের মাত্র” একজন ছাত্রী’ বাকি ‘মেয়েদের বিয়ে! দেড়বছর করোনার ঢেউয়ে নিমজ্জি’ত ছিল দেশের শিক্ষাঙ্গন। …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *